মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

মামলার আবেদন

বরাবর,

       চেয়ারম্যান

       ৬নং মাড়েয়া বামন হাট ইউ পি,

       উপজেলা-বোদা,জেলা-পঞ্চগড়।

বিষয়ঃ-অন্যায় ভাবে মারপিটের সুবিচার চাহিয়া আবেদন।

      তাং ২৯/০৪/২০১৩ইং

ঘটনার ন্থান ওতারিখ বিবাদীর বাড়ীর সংলগ্ন আমার জমিতে ২২/০৪/২০১৩ইং রোজ রবিবার অনুমান সকাল ০৭ ঘটিকা,

স্বাক্ষী-১।মোঃ এনামুল হক পিতা-সিদ্দীক আহমেদ ২।মোঃ অফিজ উদ্দীন পিতা-মৃত সুরত আলী

৩।মোছাঃবেদেনা বেগম স্বামী-মোঃ এনামুল হক ৪। মোঃ হাবিবুর রহমান পিতা-মোঃহাচেন আলী সর্ব সাং কাউয়াখাল, উপজেলা-বোদা,জেলা-পঞ্চহড়।

জনাব,

      যথাবিহীত সন্মান পূর্বক নিবেদন এই যে, আমি আপনার ইউনিয়নের সহজ সরল স্থায়ী বাসিন্দা বটে পক্ষাত্মরে বিবাদীগন ডাঙ্গাবাজ ও মামলা বাজ পরধন লোভী ব্যক্তি হইতেছেন।

যেকোন অন্যায় কাজ করিতে বাদেনা। ঘটনার বিবরনে প্রকাশ থাকে যে, বিবাদীগন আমার নিজ দখলিয় জমিতে  বাড়ী ঘর তৈরিকরিয়া বসবাশ করিয়া আসিতেছেন। আমি বিবাদীদের বাড়ীর চার পাশ্বে চাষাবাদ করে ফসলাদী উৎপাদন করিয়া আসিতেছি।বিবাদীরা এতই বরবর যে,আমার ফসলের ÿতিসাদন করে। ঘটনার দিনে আমি পুর্বের ন্যয় বিবাদীদের বাড়ীর পাশ্বে চাষাবাদের উদ্দেসে গরম্নর হাল লইয়া যাই ও হাল চাষ শুরম্ন করি বিবাদীরা তাহাদের বাড়ীর বেড়া লম্বা বাশদিয়ে ঢেশ দিয়া রাখে যাহা আমার হালচাষের অসুবিধা সৃষ্টি করে মর্মে আমি বিবাদীদের কে ডাকিয়া খুটি গেরে বেড়া সোজা করিয়া দিতে বলি বিবাদীরা আমার কথায় কর্ণপাত করেনাই।অতপর চাষাবাদ চলার কালিন সময়ে হালের জোয়াল লাগিয়া ডেশ দেওয়া বাশটি পরিয়া গিয়া বেরা পরিয়া জায়।তৎখনাত বিবাদীরা লাঠী সোটা ও সাবর বোটি হাতে লইয়া চরাউ হইয়া আগাইয়া আসে । ১নং বিবাদী চরাউ হইয়া বলে, সালা কে তোমাকে হাল লইয়া আসতে বলেছে।তোমাকে হাল চাষ করতে নিষেধ করেছি।তুমি শুন না তোমাকে এখানে জিয়মত্ম পুতে রাখবো বলে আরো চরাউ হইয়া উঠে ও ১নং বিবাদী তাহার হাতে থাকা সাপল দিয়ে আমার মাথায় ডাঙ্গ মারে সাপলের আগাতে আমার মাথা ফেটে রক্ত পরতেথাকে ২নং বিবাদীনি তার হাতে থাকা বটি দিয়ে কোপ মারে বটিফিরাতে গিয়া আমার হাতে জখম ও রক্তপাত হয়। আমার হাতে থাকা হালুয়া পেনঠিটি  ৪ও৫নং বিবাদী কারিয়া লইয়া যায়। এই নিরস্ত্রতার সুযোকে বিবাদীরা আমাকে প্রানে মেরে ফেলার উদ্দেশ্বে এলোপাথারি মার ডাঙ্গ শুরম্ন করে প্রানে বাচার জন্য চিৎকার করিলে আমার ছোট ছেলের বউ মোছাঃ রোজিনা খাতুন দৌড়াইয়া আসে । অতপর বিবাদীরা তাহাকে ও এলো পাথারি মার পিট শুরম্ন করে। মার পিটের ফলে রোজিনা খাতুন এর সরিরে বিভিন্ন ইস্থানে ফুলা জখম ও রক্তপাত হয়।ওনানা রম্নপ অশলিন ভাষায় গালী গালাজ করে। আমার চিৎকার সুনিয়া আমার ছোট ছেলে মোঃ এনামুল হক ঘটনা স্থানে আসে তাহার স্ত্রী-কে মারপিটের ঘটনা দেখে তাহাকে রÿাকরার জন্য আগাইয়া যায়।তাহাকে দেখে বিবাদীরা আরো চরাউ হইয়া উঠে । ১নং বিবাদী দা হাতে লইয়া তাহার দিকে আগাইয়া যায়। এমতাবস্থা দেখে সে হত ভোম্ব হয়েপরে।দা দিয়া কোপ দিতে গেলে সে দাটি ধরে ফেলে ও কারাকারি করতে থাকে এমন সময় আমার ছেলের হাত কেটে যায়।২/৩/৪ ও৫নং বিবাদীরা তাহাকে এলো পাথারি মারপিট শুরম্ন করে । এমতা বস্থায় স্বাÿীরা ঘটনা স্থলে আসে।১নং স্বাÿী-দাউটি উভয়ের হাত হতে কেরে নেয়।ও আমার ছোট ছেলেকে রÿা করে।আরো উলেস্নখ থাকে যে, ইতি পুর্বে ও ১ও২নং বিবাদী আমার বউ মা রোজিনা খাতুন কে মার পিট করে ও নাকের একটিফুল জোর পুর্বক কেরে নিয়ে যায়। জাহা আমি মৌখিক ভাবে আপনাকে জানাই। পলিস্ন চিকিৎসক মোঃ হাবিবুর রহমান সামইক উষধ পত্রদেয় ও আমাকে বোদা,হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেয়।সে পরামর্শ মতে হাসপাতালে ভর্তি হই এবং ২২/০৪/২০১৩ইং তারিখ হইতে ২৮/০৪/২০১৩ইং তারিখ পর্যমত্ম ৭ দিন চিকিৎসার পর বাড়ীতে ফিরে আসি।

এমবস্থায় নিরম্নপায় হইয়া আপনার সরণা পুন্ন হইলাম।

অতএব প্রাথনা যে,অনুগ্রহ পুর্বক আমার আবেদনের প্রতি সদয় হইয়া সরজমিনে তদমত্ম পুর্বক স্বাÿী প্রমান গ্রহন করে সুবিচার করিতে আপনার মর্জি কামনা করিতেছি।

                                                                                                নিবেদক 

 


Share with :

Facebook Twitter